চুল উঠে কেন ? চুল উঠার প্রতিকার

Hair Fall Solution

কেন চুল উঠে

বহু কারনের জন্য চুল উঠতে পারে। চুল উঠে ও নতুন চুল গজায়। কিন্তু বেশি পরিমাণে চুল ওঠার কয়েকটি কারন আছে।

১. বংশগত জনিত কারন

বংশগত কারনে চুল আমাদের বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে। যেমন ঘন,পাতলা ও কালো। আমাদের জিন গত কারনে আমরা নানারকম চুলের সমস্যায় পড়তে পারি। এই সকল কারন গুলি বংশ পরম্পরায় চলে আসে।

২. চুলের উপর চাপ

চুলের ওপর অতিরিক্ত চাপ পড়ে তাহলে চুলের গোঁড়া হাল্কা হয়ে যেতে থাকে। এর ফলে আমাদের টাকের সমস্যা দেখা দেয়। একে বলে ট্রাউমা। তাছাড়া বিভিন্ন অসুখের কারনে চুল পড়তে থাকে।

৩. চুলের গোঁড়া পরিষ্কার না থাকা

মাথা ভালো করে পরিষ্কার না করলে চুলের নোংরা জমে খুস্কি দেখা দেয়, এরফলে চুলের গোঁড়া তার পক্ততা হারিয়ে ফেলে। এর ফেলে চুলের গোঁড়া আলগা হতে থাকে ও চুল উঠতে শুরু করে।

৪. হরমোন জনিত কারন

হরমোনের কারনে আমাদের চুল উঠতে থাকে। গর্ভনিরোধক এর ব্যবহারের ফলে আমাদের চুল উঠে যায়। এছাড়া মহিলাদের বিভিন্ন ধরনের হরমোন পতনের ফলে চুল দুর্বল ও খসখসে হয়ে পড়ে। গর্বঅবস্থায় দেহে এন্দ্রজেন গ্রন্থির ফলে হরমোন বেড়ে যায় ও চুল বেড়ে যায়, কিন্তু প্রসবের পর এই সব হরমোন কমে যাওয়ার কারনে প্রচুর পরিমাণে চুল উঠতে থাকে।

চুল উঠা রোধ করা যায় কিভাবে

১. পুষ্টি কর খাদ্য

আমাদের শরীরের পুষ্টির উপর নির্ভর করে চুল বেড়ে ওঠা ও চুল পড়ে যাওয়া। যদি মনে হয় উপযুক্ত পুষ্টির কারনে চুল পড়ে যাচ্ছে তাহলে ডাক্তারের পরামর্শর প্রয়োজন আছে। এর জন্য আপনাকে ভিটামিন, আয়োডিন জাতিয় খাবার খাওয়া প্রয়োজন। শাক, সব্জি, ফল প্রচুর পরিমাণে খেতে হবে।

২. মাথার ত্বকের যত্ন

শুধু কেবল মাত্র খাদ্যের দ্বারা এই সব সমস্যা সমাধান করা যায় না। আমাদের চারিপাশে পরিবেশের দূষণ এর ফলে চুল ও ত্বক বাইরে থেকে ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে পড়ে। তাই কেবলমাত্র খাদ্যের দ্বারা নয় বাহ্যিক ভাবে চুলের যত্ন নিতে হবে।

৩. ক্লিঞ্জিং

চুলের ক্লিঞ্জিং করতে হবে এরপর টনিং করা অবশ্যই প্রয়োজন। সঠিক ভাবে চুলে ক্লিঞ্জিং ও টনিং করলে চুলের গ্রোথ হবে ও চুল সুন্দর হয়ে উঠবে।

৪. চুলে অয়েল ম্যাসেজ

আমরা এখন চুলে অয়েল ম্যাসেজ করি না চুলকে সিল্কি দেখার জন্য রোজ দিন শ্যাম্পু করে থাকি। কিন্তু আমাদের সপ্তাহে ১ দিন চুলে অয়েল ম্যাসেজ করতে হবে। শ্যাম্পু করার আগের দিন চুলে নারকেল তেল, অলিভ অয়েল নিয়ে চুলের গোঁড়ায় লাগিয়ে ভালো করে ম্যাসেজ করতে হবে। এরপর ৩০-৪০ মিনিট রাখার পর শ্যাম্পু করে নিন।

৫. চুলের প্যাক

লিকারের পর চায়ের ভিজানো পাতগুলি সরিয়ে ফেলুন। এরপর জল দিয়ে কড়া করে ফুটিয়ে লিকার তৈরি করুন। এই লিকারে ২-৩ ফোঁটা লেবুর রস মিশিয়ে নিন। এরপর ঠাণ্ডা হলে এই জল টি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। কিন্তু শ্যাম্পু করার পর।

এই পেজ টি SHARE করুন:

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *